Student Name: Fariha Binte Liaquat  (HQFCM-1)

Father: S.M. Liaquat Ali

Mother: Mrs Ruma

সমস্ত প্রশংসা মহান আল্লাহ সুবহানাহুয়া তায়া’লার জন্য, সলাত ও সালাম বর্ষিত হোক প্রিয় নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপর।

আলহামদুলিল্লাহ সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।

এই ৩ দিন ব্যাপি যে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হলো এর মধ্যে আমার আকাঙ্খিত দিনটি ছিল ২১ ডিসেম্বর কারণ এখানে সম্মানিত স্যার মোখতার আহমেদ,  বিজ্ঞ আলেমগণ ও দেশের বেশ কয়েক জন গুণিজনের মূল্যবান কিছু  নাসিয়াহ অর্জন করার সৌভাগ্য আমার হবে যেই উপদেশগুলো আমাকে, আমার স্বামী ও সন্তানদেরকে    সঠিক পথে চলতে, সঠিক ভাবে আমল করে দুই দুনিয়াতেই উপকৃত  হতে সাহায্য করবে ইং শা আল্লাহ।

আমি এই ক্লান্তহীন ভাবে পরিশ্রম করা দ্বীনি ভাইগুলোর কথা মুখে বলে শেষ করতে পরবনা। আল্লাহ চায় তো

 এখানে আসলেই আমার সন্তান উপকৃত হতে পারবে যদি সে ধৈর্যের মাধ্যমে সম্মানিত উস্তাজদের আদেশ সঠিক ভাবে পালন করতে পারে।

কেন বলছি এ কথা?গত ১৯,২০ তাং আমি দেখেছি দ্বীন কায়েমের পথে অবিচল শিক্ষকেরা  কি পরিমান পরিশ্রম করতে পারে।

তাঁদের কষ্ট করা দেখে প্রতিদিন মা’বুদের দরবারে চোখের পানি ঝরিয়েছি হাত দুটি তুলে।

এই সম্মানিত উস্তাজদের কথা বলে আমার মত স্বল্প জ্ঞানী মানুষ শেষ করতে পরবেনা  না এতটুকুই বলব

🌹দয়াময় আল্লাহ! 🌹

আমরা যারা দুই দুনিয়াতেই  আপনার আযাব থেকে বাঁচার জন্য আর আপনার রহমতের আসা ধারী হয়ে ইলম অর্জনের জন্য যার প্রতিষ্ঠানেও যে সকল  শিক্ষকদের স্মরণাপন্ন হয়েছি আপনি আমাদের ও তাদেরকে আপনার খাস রহমত দান করুন ও এক ঝাঁক পাখির মতো হয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস প্রবেশ করান আমিন সুম্মা আমিন।

তারবিয়াহ অনলাইন মাদ্রাসা আমার ১২ বছর পর্বের কল্পনার প্রতিষ্ঠান, যখন সম্মানিত শায়েখ মোখতার আহমেদ র কুরআনের তাফসীর দেখতাম টেলিভিশনে, তখনই আল্লাহকে বলেছি আল্লাহগো আপনি আমায় এমন ব্যাবস্থা করে দিন যেনো আমার দুটি সন্তানকেই স্যারের হাতে তুলে দিয়ে বলতে পারি আমার সন্তানদের আপনার মতো করে আল্লাহর ইচ্ছায় তৈরী করে দিন। অনেক কেঁদেছি এ আকাঙ্খা বুকে লালন করে 😥

১২ বছর পরে মুসলিম উম্মাহর জন্য উপর থেকে সাহায্য পাঠালেন

💓মহান রব💓

   💚করনাকে💚

আলহামদুলিল্লাহ সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।

আমার মতো ক্ষুদ্র  মানুষের পক্ষে কোনদিন এই অসম্ভবকে সম্ভব করারা সাধ্য ছিলো না। আলহামদুলিল্লাহ

আমার মেয়ে সন্তানটিকে এখানে ভর্তি করতে পেরেছি। আর ছেলেকে নিয়ে জীবনের বড় পরিক্ষার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছি। এই ম্যাসেজের মাধ্যমে স্যার মোখতার আহমেদ ও

সকল মুসলিম দ্বীনি ভাই ও বোনদের  কাছে খাস করে দু’আর দরখাস্ত রইলো মুসলিম দ্বীনি বোনের পরিবারের সকলের জন্য।

ইয়া আল্লাহ!

আমাদের সকলকে ধৈর্য শক্তি বারিয়ে দিন আমিন 

ঈমানি শক্তি বারিয়ে দিন আমিন

ও সঠিক আমলও আক্বিদায় পরিপূর্ণ করে দিন আমিন সুম্মা আমিন।

Previous One

আলহামদুলিল্লাহ সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ

আমার মেয়েকে কোন মাদ্রাসায় পড়াইনি একজ হুজুরকে দিয়ে ১০, ১৫ দিন পড়িয়েছিলাম

আর বাকি  কোরআন শিক্ষাটা এই অল্পজানা মায়ের হাতেই হয়েছে,যদি ও আমার মেয়ে প্রতিযোগীতায় কোন স্থান অধিকার করতে পারেনি তবুও ঐ মহান আল্লাহকে তাঁর ব্যাপ্তি সমপরিমাণ, তাঁর সকল সৃষ্টি সমপরিমাণ শুকরিয়া যে আমার মেয়ে সেরা ২০এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলো তাই আমি মনে করি আমার চেয়ে বড় পুরস্কারটি কেউ নিতে পারেনি আলহামদুলিল্লাহ সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।

আর খুবই অল্প সময়ে আঁকা ফারিহা বিনতে লিয়াকতের ছবিটা

২য় স্থান অধিকার করেছে আল্লাহর দয়ায়। আমি আমার দয়াময় মহান আল্লাহ সুবহানাহুয়া তায়া’লার শুকরিয়া করে শেষ করতে পারব না এ পাওয়াটা আমার কল্পনার বাইরে ছিল।

আলহামদুলিল্লাহ সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।

Previous One

আলহামদুলিল্লাহ

এই প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে যাঁরা ক্লান্তহীন ভাবে যে সকল এডমিন ভাইয়েরা পরিশ্রম  করে যাচ্ছেন তাঁরা  নিশ্চই,নিঃস্বন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখেন আল্লাহ ভাইদের তাঁর প্রিয় বান্দাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করুন আমিন সুম্মা আমিন।

আমি আশ্চর্য হয়েছি এত্তো, এত্তো ব্যাস্ততার মধ্যে ও না পারা, না বোঝা বিষয়গুলো নিয়ে ভয়ে,ভয়ে যখনই সহযোগিতা চেয়েছি তাঁরা   সাথে, সাথেই  সহযোগীতার হাতটি এমন ভাবে বাড়িয়ে দিয়েছেন মনের হচ্ছিল আমার সমস্যাটা সমাধান করার জন্যই তাঁরা অপেক্ষমান ছিল আল্লাহু আকবার।

ওয়াল্লাহে এতটুকু বিরক্ত স্বর তাদের কাছ থেকে শুনিনি।

নিজের থেকেই ভয়টা পেতাম কারণ তাঁরা কতইনা ব্যস্ত থাকেন এই কথা ভেবে।

ইয়া আল্লাহ!

আমরা সকলেই মানুষ তাই ভুলের উর্ধ্বে আমরা নই,আমাদের সকল অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও সম্মানিত চেয়ারম্যানসহ সকল সহযোগী উস্তাজগণ ও সহযোগী এডমিন ভাইদেরকে আপনার ক্ষমার ছায়াতলে আশ্রয় দান করুন আর ইহদিনাস সিরত্বোল মুসতাকিমের পথ দেখান আমিন সুম্মা আমিন।